আর্কাইভ  বৃহস্পতিবার ● ২৭ জানুয়ারী ২০২২ ● ১৪ মাঘ ১৪২৮
আর্কাইভ   বৃহস্পতিবার ● ২৭ জানুয়ারী ২০২২

লালমনিরহাটে সাংবাদিককে জবাই করার হুমকী

মঙ্গলবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০২১, সকাল ০৭:৩৯

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: সংবাদ প্রকাশের জের ধরে বাংলানিউজ২৪.কম এর লালমনিরহাট ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট খোরশেদ আলম সাগরকে জবাই করে হত্যার হুমকী দিয়েছেন লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান অফিস সহকারী মাহবুব আলম লিকু।

সোমবার(২৭ ডিসেম্বর) রাতে নিজের জীবন ও পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে আদিতমারী থানায় সাধারন ডায়েরী(জিডি) করেছেন খোরশেদ আলম সাগর।

হুমকীদাতা মাহবুব আলম লিকু আদিতমারী উপজেলার ভাদাই ইউনিয়নের টাওয়ার পাড়ার মৃত মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে। বর্তমানে লালমনিরহাট শহরের টিএনটি পাড়ার বাসিন্দা। তিনি আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান অফিস সহকারী হিসেবে কর্মরত।

জিডি সুত্রে জানা গেছে, আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সরকারী কোয়াটার বরাদ্ধে অনিয়ম তুলে ধরে গত ২৫ নভেম্বর বাংলানিউজে ''কাকের বাসায় কোকিলের বাস! রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার" শিরোনামে একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করেন বাংলানিউজের লালমনিরহাট ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট খোরশেদ আলম সাগর। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে হাসপাতালের প্রধান অফিস সহকারী মাহবুব আলম লিকু সংক্ষুব্ধ হন। ওই হাসপাতাল এলাকার আব্দুল আউয়ালের ছেলে ভাদাই ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেনের সাথে প্রতিবেদক খোরশেদ আলম সাগরের সখ্যতা থাকায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ধারনা ওই নিউজের পিছনে ইকবালের হাত রয়েছে। তাই সাংবাদিক সাগর ও ইকবালকে বিভিন্ন সময় দেখে নেয়ার হুমকী দিয়ে আসছে হাসপাতালের প্রধান অফিস সহকারী মাহবুব আলম লিকু।

এর জের ধরে সোমবার(২৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৭.০৩ মিনিটে মাহবুব আলম লিকু তার ০১৭১৮৮৭৮০৪৫ নম্বর থেকে ইকবাল হোসেনের ০১৯২৬৬০৯৬৪৩ নম্বরে দুইবার ফোন করে কিন্তু রিসিভ করেনি ইকবাল। পরে জানতে পেয়ে ইকবাল তার ফোন থেকে সন্ধ্যা ৭.১০ মিনিটে প্রধান অফিস সহকারী মাহবুব আলম লিকুকে ফিরতি ফোন দিলে তিনি রিসিভ করেই হাসপাতাল নিয়ে নিউজ করায় সাংবাদিক সাগরকে উদ্দেশ্যে করে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করেন। এক পর্যয়ে সাংবাদিক সাগর ও তাকে সেলটার দেয়ার দায়ে ইকবাল হোসেনকে জবাই করে হত্যা করার হুমকী দেন মাহবুব আলম লিকু।

এক মিনিট ৫০ সেকেন্ডের এ কল রেকর্ডে লিকু বলেন," ইকবাল আমার মাথা গরম হয়েছে। কত বড় সাংবাদিক হয়েছে, দেখবো। লোকজন নিয়ে আসতেছি জবাই করবো। তুই সেল্টার দিচ্ছিস, তোকেও জবাই করবো। ও(সাংবাদিক সাগর) কোথায় রে?"। প্রথম দিকে সাংবাদিক সাগরের পরিবার নিয়ে অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করেন লিকু।

এ ঘটনায় নিজের ও ইকবালের জীবন এবং উভয়ের পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে সোমবার(২৭ ডিসেম্বর) রাতেই আদিতমারী থানায় একটি সাধারন ডায়েরী(জিডি) করেন বাংলানিউজের সাংবাদিক খোরশেদ আলম সাগর। যার জিডি নং - ১২০৮।

সাংবাদিক খোরশেদ আলম জানান, প্রাণনাশের হুমকি পাওয়ার পরপরই আদিতমারী থানায় সাধারণ ডাইরী করেছি। ‌ এছাড়াও আমার সহকর্মীদের বিষয়টি অবগত করেছি।

বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের জেলা ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান সাজু বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে ধারাবাহিক নিউজ করেছেন সাংবাদিক সাগর। যে কারণে তাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। তাই অঙ্কিতা তাকে দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি করছি। দ্রুত তাকে গ্রেপ্তার না করলে বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক দেওয়া হবে।

আদিতমারী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোক্তারুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। তদন্ত করে পরবর্তি আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য করুন


Link copied